ফের হাইকোর্টে মুখ পুড়ল রাজ্য সরকারের। ভোট-পরবর্তী হিংসা মামলাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টে পক্ষ থেকে রাজ্য প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ভোট পরবর্তী হিংসাকে কেন্দ্র করে যা যা অভিযোগ রয়েছে তা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব রেকর্ড রাখতে হবে। এর পাশাপাশি রাজ্য সরকারকে কলকাতা হাইকোর্টের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ভোট পরবর্তী হিংসায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের চিকিৎসা খরচ এবং রেশনের ব্যবস্থা রাজ্য সরকারকে গ্রহণ করতে হবে।

কলকাতা হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দলের নেতৃত্বে গঠিত পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ রাজ্যের মুখ্য সচিবকে নির্দেশ দিয়েছে ভোট পরবর্তী হিংসা কেন্দ্রিক সমস্ত নথি সংরক্ষিত রাখার জন্য। শুক্রবার বেঞ্চ এর পক্ষ থেকে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং যাদবপুর পুলিশের সুপারিনটেনডেন্টকে শোকজ করা হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য ভোট পরবর্তী হিংসা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে গিয়ে যাদবপুরে হামলার মুখে পড়তে হয় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধি দলকে। গত ২ মে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই বিরোধী রাজনৈতিক দলের কর্মীদের উপর আক্রমণ নামিয়ে আনে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা। যা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রাজ্য রাজনীতি। তৃণমূল কংগ্রেসের দুষ্কৃতী বাহিনীর হাতে নিহত হন সিপিআই(এম )কর্মী কাকলি ক্ষেত্রপাল, তাছাড়া গোটা রাজ্যে বিভিন্ন প্রান্তের বামপন্থী কর্মী সমর্থকদের ওপর তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে হামলা চালান হয়। যাদবপুর সহ বিভিন্ন এলাকার বহু পার্টি অফিস এবং বহু বামপন্থী কর্মী-সমর্থকদের বাড়ি ভাঙচুর করা হয়।