বামফ্রন্ট সরকারের সময় থেকেই যে অর্থনৈতিক – রাজনৈতিক ভাবনা আমরা রাজ্যের মানুষকে বলার চেষ্টা করেছি তা হলো কৃষি আমাদের ভিত্ত- শিল্প আমাদের ভবিষ্যত। আমরা সেই পথ ধরেই এগিয়েছি।

কিন্ত দুর্ভাগ্যবশত: বর্তমান সরকারের হাতে গত দশ বছরে সেই কৃষিতে আমরা পিছিয়ে পড়েছি। উল্লেযোগ্য কোন শিল্প আসেনি গত একদশকে। নন্দীগ্রাম ও সিঙ্গুরে এখন শশ্মানের নীরবতা। সেসময়ের কুটিল চিত্রনাটোর চক্রান্তকারীরা আজ,দুভাগে বিভক্ত হয়ে পরস্পরের বিরুদ্ধে কাদা ছোঁড়াছুড়ি করছে। কর্মসংস্থানের সুযোগ হারিয়েছেন বাংলার যুব সমাজ। সরকারি ক্ষেত্রে কোনো নিয়োগ নেই। বাংলার মেধা ও কর্মদক্ষতা যা আমাদের সম্পদ – তা আমাদের রাজ্য ছেড়ে ভিনরাজ্যে চলে যেতে বাধ্য হচ্ছে।

গত এক দশকে পশ্চিমবঙ্গ সবদিক দিয়েই পিছিয়ে পড়ছে। যুবদের কাজের স্বপ্ন চুরমার হয়ে গেছে, শিক্ষাঙ্গন কলুষিত, স্বাস্থ্যপরিষেবা গরীব মানুষের নাগালের বাইরে- কার্যত ভেঙে পড়েছে।

দু্নীতি-তোলাবাজি-সিন্ডিকেটরাজ রাজ্যবাসীর জীবনধারন দুর্বিষহ করে তুলেছে। মহিলাদের নিরাপত্তা, সন্ত্রম, আত্মনির্ভরতা সমাজবিরোধীদের দৌরাত্ম্যে আজ বিপন্ন। স্থানীয় স্তর পর্যন্ত প্রসারিত গণতন্ত্র যা ছিল বামফ্রন্টের সময় উন্নয়নের ভিত্তি তা একেবারে ধ্বংস হয়েছে এই দশ বছরে। সর্বোপরি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির যে পরিবেশ পশ্চিমবঙ্গের গর্ব ছিল তাকে বিষাক্ত করে তোলা হয়েছে। একদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের স্বৈরতান্ত্রিক দাপাদাপি অন্যদিকে বিজেপির বৃহৎ পুঁজির স্বার্থে সর্বনাশা আর্থিক নীতি, বিভেদের রাজনীতি, সাম্প্রদায়িক মেরুকরণ- যার পেছনে রয়েছে আরএসএস-এর ভয়ংকর মতাদর্শ। এরই পরিণতি রাজ্যে আজকের এই ধ্বংসচিত্র।

পশ্চিমবঙ্গ সপ্তদশ বিধানসভা নির্বাচন শুরু হয়ে গেছে। এই নির্বাচন পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে একটি সন্ধিক্ষণ। বর্তমান অবস্থার অবসান ঘটাতেই হবে। আজ বাংলার মানুষের ঘুরে দাঁড়ানোর সময় এসেছে। নতুন প্রজন্মের হাজার হাজার যুবক-যবতী ছোট-মাঝারী-বৃহৎ শিল্প ও কর্মসংস্থানের দাবি নিয়ে পথে নেমেছে। ওরাই পারবে এই বিপদকে রুখে দিতে। বর্তমান পরিস্থিতির অবসান ঘটিয়ে নতুন সরকার সরকার তৈরি করে ওরা পারবে বাংলার হৃত গৌরবকে ফিরয়ে আনতে।

পশ্চিমবঙ্গে বামফ্রন্ট- কংগ্রেস আইএসএফ স্বৈরতন্ত্র ও সাম্প্রদায়িক বিরোধী জনগনের মোর্চা (সংযুক্ত মোর্চা) তৈরি করেছে। এরাই পারবে এই অন্ধকার থেকে রাজ্যকে বের করে আনতে। জনগনের স্বার্থে নতুন সরকার প্রতিষ্ঠার জন্য তাই এই শক্তিকে বিধানসভা নির্বাচনে জয়ী করার জন্য সর্বস্তরের মানুষের কাছে আবেদন জানাচ্ছি। পশ্চিমবাংলায় গণতন্ত্র, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, শ্রমিক -কৃষক ও খেটে খাওয়া মানুষের জীবন – জীবিকার স্বার্থে এই সরকার রাজ্য পরিচালনা করবে। তাই, রাজ্যের সমস্ত আসনে সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থীদের জয়যুক্ত করুন।

২৯ মার্চ, ২০২১
কলকাতা